উজ্জীবকদের প্রচেষ্টায় সংস্কার হলো নোহালীর তিন কিলোমিটার সড়ক ও বাঁশের সাঁকো

স্বেচ্ছাশ্রমে চলছে বাঁশের সাঁকো মেরামতের কাজ

কথায় আছে- ‘দশে মিলে করি কাজ, হারি জিতি লাজ’ কিংবা ‘দশের লাঠি একের বোঝা’। রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলার নোহালী ইউনিয়নের স্বেচ্ছাব্রতীরা যেন তারই প্রমাণ রাখলেন। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সংস্কার হলো স্থানীয় চর বাগডহরার তিন কিলোমিটারের একটি কাঁচা সড়ক এবং একটি বাঁশের সাঁকো (আট ফুট প্রস্থ ও ১০৫ ফুট দৈর্ঘ্য)।

দীর্ঘদিন ধরে সাঁকোটি অচল থাকায় এবং সড়কটির বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গা থাকায় দুর্ভোগের শিকার হতে হয় নোহালী ইউনিয়নের চরবাসী-সহ স্থানীয় জনগণকে। বিষয়টি পরিলক্ষিত করেন স্থানীয় উজ্জীবক উজ্জীবক ডাঃ মতিয়ার রহমান, মান্নান, সিদ্দিক, শফিকুল, মাহুবুল, আবু তালেব এবং আবু বকর। তারা সাঁকো এবং সড়কটি সংস্কারের লক্ষ্যে ১ জুন ২০১৫ ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ সাইফুল-এর সাথে আলোচনায় মিলিত হন। আলোচনা শেষে স্থানীয় জনগণের উদ্যোগে চরবাগডহরা হতে বড়াইবাড়ি ঘাট পর্যন্ত যাওয়ার সড়কটি সংস্কার ও বাঁশের সাঁকোটি সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সাথে সাথে সিদ্ধান্তটি গ্রামের সর্বসাধারণকে জানিয়ে দেয়া হয়। এরপর স্থানীয় কাছ থেকে (স্বেচ্ছায়) ৪৬ হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয়।

৭ জুন ইউপি সদস্য মোঃ সাইফুল ইসলাম নিজে কোদাল দিয়ে মাটি কেটে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন। এলাকার আরও ৮৩ জন লোক মাটি কাটার কাজে যোগ দেন। তারা বিশেষ করে ৭ ও ৮নং ওয়ার্ডের জনগণ প্রত্যেকে স্বেচ্ছায় পাঁচ ফুট করে সড়ক সংস্কারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এভাবে মেরামত করা হয় তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সড়কটি। এরপর সকলে মিলে প্রায় চার শ’ বাঁশ ও কিছু ইউক্লিপটাস গাছ, দু কেজি কাটা গজাল ও পাঁচ কেজি জিআই তার সংগ্রহ করেন এবং এগুলো দিয়ে মেরামত করেন অচল থাকা সাঁকোটি। এভাবেই উজ্জীবকদের প্রচেষ্টায় এবং স্থানীয়দের অংশগ্রহণে মেরামত হয় সড়ক ও সাঁকোটি, লাঘব হয় জনদুর্ভোগ।