উজ্জীবক আসাদুজ্জামানের প্রচেষ্টায় শিশুবিবাহের কবল থেকে রক্ষা পেল কুরছিনা

উজ্জীবক আসাদুজ্জামান
উজ্জীবক আসাদুজ্জামান

মোঃ আসাদুজ্জামান বসনিয়া। ৮৪০তম ব্যাচের এই উজ্জীবক রংপুরের কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা। ৪ জানুয়ারি ২০১৫ তারিখে তিনি জানতে পারেন যে, বিনবিনা গ্রামের মোঃ আব্দুল কাদের ও মোছাঃ মাহমুদা বেগম-এর ১৩ বছর বয়সী কন্যা সন্তান ও অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী মোছাঃ কুরছিনা খাতুন-এর বিয়ে হতে যাচ্ছে।

উজ্জীবক আসাদ কুরছিনার বাল্যবিয়ে প্রতিরোধের সিদ্ধান্ত নেন। তিনি দ্রুত কোলকোন্দ ইউনিয়নের শিশুবিবাহ প্রতিরোধ ক্লাবে সংবাদটি পৌঁছে দেন। এই সংবাদের প্রেক্ষিতে ক্লাবের আহ্বায়ক সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যকে বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত করেন। এরপর ইউপি সদস্য-সহ ক্লাবের সদস্যরা শিশুবিবাহের শিকার হতে যাওয়া কুরছিনার বাড়িতে গিয়ে তার জন্মনিবন্ধন সনদটি দেখতে চান। জন্মনিবন্ধন সনদে কুরছিনার জন্ম সাল ১৯৯৫ উল্লেখ থাকলেও সেটি উজ্জীবক আসাদ ভুয়া প্রমাণিত করেন। এ সময় তারা কুরছিনার বাবা-মা ও আত্মীয়-স্বজনদের শিশুবিবাহের কুফল সম্পর্কে বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তারা কুরছিনার বিয়ে দেয়ার ব্যাপারে অটল থাকেন। তখন ক্লাবের আহ্বায়ক ও আসাদ স্থানীয় কাজীর সাথে যোগাযোগ করেন। কাজীকে বলেন, যদি এই বিয়ে নিবন্ধন করা হয় তাহলে স্কুল সার্টিফিকেট দিয়ে তার এবং মেয়ের পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে। এ প্রেক্ষিতে কাজী সাহেব এই শিশুবিবাহ নিবন্ধনে অসম্মতি জ্ঞাপন করেন। এভাবে উজ্জীবক মোঃ আসাদুজ্জামান বসনিয়ার প্রচেষ্টায় শিশুবিবাহের কবল থেকে রক্ষা পায় মোছাঃ কুরছিনা খাতুন। বর্তমানে কুরছিনা নিয়মিত বিদ্যালয়ে যাচ্ছে।