সফলতার গল্প: উজ্জীবক রাজু হাওলাদারের বিশ্বাস- কর্মেই মুক্তি

RAJUমানুষ তার আত্মশক্তিকে কাজে লাগিয়ে নিজের জীবনে পরিবর্তন আনতে পারে- এর উজ্জ্বল উদাহরণ হলেন উজ্জীবক মোঃ রাজু হাওলাদার। তিনি বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশা ইউনিয়নের বড়াইখালী গ্রামের বাসিন্দা। ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় ফলাফল ভাল না হওয়ায় আর লেখাপড়া হয়নি। এরপর রাজধানী ঢাকায় প্রায় পাঁচ বছর একটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন রাজু হাওলাদার। ২০০৬ সালে তিনি আবার নিজ গ্রামে ফিরে আসেন। একই বছর রাজু হাওলাদার মাধবপাশা ইউনিয়নে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-এর আয়োজিত উজ্জীবক প্রশিক্ষণে (৩৯তম ব্যাচ) অংশগ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণে অংশ নেয়ার পর নিজেকে আত্মনির্ভরশীল করে তোলার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। শুরু হয় তার জীবনযুদ্ধে জয়ী হওয়ার সংগ্রাম।

রাজু হাওলাদার মাধবপাশা বাজারে এক দর্জির দোকান থেকে কাপড় সেলাইয়ের কাজ শিখে নেন। এরপর ঐ বাজারের একটি সমিতি থেকে পাঁচ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি দোকান ভাড়া নেন। সেলাই মেশিন কিনে শুরু করেন কাপড় সেলাইয়ের কাজ। বর্তমানে তার দোকানে ৭০ হাজার টাকার সামগ্রী আছে। তিনি দোকান ভাড়া দেন এক হাজার টাকা। দোকানে দু জন কর্মচারী রাখা আছে। কাপড় সেলাই ছাড়াও ঐ দোকানে কসমেটিকস্ সামগ্রী বিক্রয় করেন রাজু হাওলাদার। বর্তমানে এ দোকান থেকে তার মাসিক আয় হয় প্রায় দশ হাজার টাকা।

রাজু হাওলাদার জানান, উজ্জীবক প্রশিক্ষণ তাকে শিখিয়েছে প্রতিটি মানুষের মধ্যে রয়েছে কর্ম করার শক্তি। সেই শক্তিকে কাজে লাগাতে পারলে প্রতিটি মানুষই হতে পারে আত্মনির্ভরশীল। এ বিশ্বাসকে কাজে লাগিয়েই তিনি বর্তমানে অনেকটাই স্বচ্ছলভাবে জীবন-যাপন করছেন।