সফলতার গল্প: তৃণমূল নারীদের নিয়ে সমবায় সমিতি পরিচালনা করছেন নারীনেত্রী মর্তুজা বেগম

mমোছাঃ মর্তুজা বেগম। জন্ম ১৯৭৮ সালে। তিনি রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের উমর গ্রামের বাসিন্দা। মর্তুজা বেগম ২০১২ সালে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-এর বিকশিত নারী নেটওয়ার্ক আয়োজিত ১২৬তম ব্যাচে ‘নারী নেতৃত্ব বিকাশ’ শীর্ষক বিষয়ে প্রশিক্ষণ অংশগ্রহণ করেন। প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের পর থেকে তিনি তার নিজ এলাকায় পারিবারিক নারী নির্যাতন, শিশুবিবাহ প্রতিরোধ, জন্মনিবন্ধন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নিয়মিত উঠান বৈঠক পরিচালনা করে যাচ্ছেন।

মর্তুজা বেগম তার কাজকে গতিশীল করার জন্য স্থানীয় নারীদের নিয়ে গড়ে তুলেছেন আশার প্রদীপ নারী সমবায় সমিতি। এই সমিতির ২৫ জন সদস্য প্রত্যেকে প্রতি সপ্তাহে দশ টাকা করে জমা করেন।  বর্তমানে সমিতির মোট সঞ্চয় তিন হাজার টাকা। সমিতির কাজের স্বচ্ছতার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে তিনি যৌথ ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে সমিতির কার্যক্রম পরিচালনা করেন। বিভিন্ন রকম দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ এবং আর্থিক সহায়তা দিয়ে সমিতির সকল নারীকে স্বাবলম্বী করে তোলার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন মর্তুজা বেগম। তিনি বিশ্বাস করেন, তিনি তার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারলে সমিতির সকল সদস্যই স্বাবলম্বী হয়ে উঠবেন এবং সমাজে নারীর ক্ষমতায়ন বাড়বে।

1 comment

  1. এ আর মল্লিক

    প্রায় দেড় যুগ ধরে সম্পূর্ণ বৈধভাবে গড়ে তোলা একটি এনজিও সংগত কারণে সম্পূর্ণ হস্তান্তর করা হবে। সংস্থাটির আছে ১৮৬০ সালের সোসা্টি অ্যাক্ট নিবন্ধন,এনজিও ব্যুরো নিবন্ধন ও ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রমের জন্য এমআরএ লা্সেন্স। আছে বেসরকারি ব্যাংকের অর্থায়নে চলমান ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম ও বৃটিশ ডিএফআ্ডির অর্থসহায়তায় নারী উন্নয়ন প্রকল্প। নতুন ১ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অফার ও একটি বেসরকারী ব্যাংক কর্তৃক এজেন্ট ব্যাংকিং এর প্রস্তাবনা রয়েছে। এছাড়া আছে প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের মহাসড়ক সংলগ্ন বিঘা জমি। বিভিন্ন সমবায় সমিতি বা দল যাদের বিনিয়োগ তহবিল আছে, সংস্থা গড়তে চান, কিন্তু সরকারি অনুমোদন পাচ্ছেন না তারা যোগাযোগ করুন। সংস্থার রেজিস্ট্রেশন, গঠনতন্ত্র ও প্রাচীনতার সুবিধা গ্রহণ করে বাংলাদেশের যেকোনো স্থানে কার্যক্রম গড়ে তুলতে পারবেন। যোগাযোগ করুন। ar_mollik@yahoo.com
    Reply

Comments are closed.